শুক্রবার, জুন ১৮, ২০২১

পর্ব : ২ ভুল ডোজ এখন ‘লাকি ডোজ’,কবে পাচ্ছি অক্সফোর্ড ভ্যাকসিন

পর্ব : ২ ভুল ডোজ এখন ‘লাকি ডোজ’,কবে পাচ্ছি অক্সফোর্ড ভ্যাকসিন

image_pdfimage_print

ব্রিটেনের এমএইচআরএ অনেকটা এফডিএ’র কাউন্টার পার্ট হিসেবে পরিচিত। অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের তৃতীয় ধাপের যে ট্রায়াল সম্পন্ন হয়েছে, সেটি এমএউচআরএ এখন পর্যালোচনা করছে। অনুমতি দেবে কি না, তা হয়তো আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে জানা যাবে।

ড. আকরামের পর্যালোচনা, ‘অনুমতি দেবে কি না জানি না। যদি ধরে নেই অনুমতি দেবে, তবে সেটি দেবে শুধু ব্রিটেনের জন্য। ভারত, ব্রাজিল বা অন্য দেশের জন্য নয়। ভারত বা ব্রাজিল অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের ট্রায়াল করছে, উৎপাদন করবে। কিন্তু তারা অনুমোদন দিতে পারবে না। তারা তখনই অনুমোদন পাবে, যখন ডব্লিউএইচও অনুমোদন দেবে। ট্রায়ালের বর্তমান ফলাফলকে ডব্লিউএইচও ও এফডিএ সন্তোষজনক মনে করছে না। তারা ইতোমধ্যে সেই ইঙ্গিত দিয়েছে।’

‘ভারতে সেরাম যে ভ্যাকসিন উৎপাদন করবে, ডব্লিউএইচও অনুমোদন না দিলে ভারত নিজ দেশে বা অন্য কোথাও তা বিপণন করতে পারবে না। তার মানে বাংলাদেশও ভ্যাকসিন পাবে না, পেতে দেরি হবে। ডব্লিউএইচও আবার আস্থা রাখে এফডিএ’র ওপর। এফডিএ অনুমোদন দিলে ডব্লিউএইচও সাধারণত অনুমোদন দিয়ে দেয়।’

কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান অনুমোদনের আগেই ভ্যাকসিন উৎপাদন শুরু করেছে। এ বিষয়ে ড. আকরাম বলছিলেন, ‘কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন অনুমোদন পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে যাতে বাজারে নিয়ে আসা যায়, সে কারণে অনুমোদনের আগেই অনেকে ভ্যাকসিন উৎপাদন করে মজুদ করেছে। অনুমোদন না পেলে ভ্যাকসিন ধ্বংস করে ফেলবে। ভারতে সেরাম যেমন কাগজপত্র প্রস্তুত করে রেখেছিল। কারণ তারা নিশ্চিত ছিল যে, অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন অনুমোদন পেতে যাচ্ছে। কিন্তু ট্রায়ালের ভুল ও নতুন ট্রায়ালের বিষয়টি সামনে আসায় সবকিছুই অনিশ্চিত হয়ে গেছে।’

‘এমএইচআরএ’র অনুমোদন মানে শুধু ইউকেতে অনুমোদন, ইউরোপেও নয়। ফাইজারের ৮ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন ইউকে দু-একদিনের মধ্যে পেয়ে যাবে। আগামী সপ্তাহের মাঝামাঝিতে ভ্যাকসিনেশন শুরু করতে পারবে। সমস্যা হচ্ছে ফাইজারের ভ্যাকসিন মাইনাস ৮০ ডিগ্রি তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করতে হয়। এই সংরক্ষণ ব্যবস্থা শুধু ইউকের বড় বড় হাসপাতালে আছে। সারাদেশে যে সেবা কেন্দ্রগুলো থেকে মানুষ চিকিৎসা সেবা পেয়ে থাকে, সেসব জায়গায় মাইনাস ৮০ ডিগ্রিতে সংরক্ষণের ব্যবস্থা নেই। এই ব্যবস্থা ইউরোপের কোনো দেশেই সর্বত্র নেই’, বলছিলেন ড. আকরাম।

ফাইজার, মডার্না ও অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন ছাড়াও আলোচনায় আছে রাশিয়ার একটি ও চীনের দুটি ভ্যাকসিন। রাশিয়া ও চীনের ভ্যাকসিন বিষয়ে ড. আকরামের পর্যালোচনা, ‘তৃতীয় ধাপের ট্রায়াল ছাড়া ভ্যাকসিন অনুমোদন দেওয়া যায় না। রাশিয়া তার ভ্যাকসিন তৃতীয় ধাপের ট্রায়াল সম্পন্ন না করেই অনুমোদন দিয়েছিল। এজন্য তারা সংবিধান পরিবর্তন করে নিয়েছে। নিজ দেশে প্রয়োগ করতে শুরু করেছে। রাশিয়া আন্তর্জাতিক বাজারেও তার ভ্যাকসিন নিয়ে আসতে চায়। সে কারণে ৪০ হাজার মানুষের ওপর তৃতীয় ধাপের ট্রায়াল শুরু করেছে। এর মধ্যে ২০ হাজার মানুষের ওপর প্রয়োগ করা ফলে তারা দেখিয়েছে ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা ৯২ শতাংশ। রাশিয়ার ভ্যাকসিন অনেকটা অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের মতো। রাশিয়া ব্যবহার করেছে মানুষের অ্যাডিনো ভাইরাস আর অক্সফোর্ড ব্যবহার করেছে শিম্পাঞ্জির অ্যাডিনো ভাইরাস।’

‘চীনও তার সিনোভ্যাক ভ্যাকসিন তৃতীয় ধাপের ট্রায়াল না করেই নিজ দেশের জনগণকে দিতে শুরু করে। চীন তার আরেকটি ভ্যাকসিন ক্যানসিনোবায়ো তৃতীয় ধাপের ট্রায়াল না করেই প্রয়োগ করেছে আর্মির ওপর। তবে, চীন সিনোভ্যাক ভ্যাকসিনের তৃতীয় ধাপের ট্রায়াল শুরু করেছে। সিনোভ্যাকের তৃতীয় ধাপের ট্রায়াল বাংলাদেশে হওয়ার কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত হয়নি। মধ্যপ্রাচ্য, তুরস্ক, ব্রাজিলে তাদের ভ্যাকসিনটির তৃতীয় ধাপের ট্রায়াল চলছে’, বলছিলেন ড. আকরাম।

তিনি বলেন, ‘ভ্যাকসিন তো আসবেই। তবে ইউকেতে ফাইজারের ভ্যাকসিন অনুমোদন পাওয়া ছাড়া, পৃথিবীর আর কোনো ভ্যাকসিন কোথাও যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে এখনো অনুমোদন পায়নি।’

পর্ব : ১ ভুল ডোজ এখন ‘লাকি ডোজ’,কবে পাচ্ছি অক্সফোর্ড ভ্যাকসিন

__________________________________________

ড. খোন্দকার মেহেদী আকরাম,
এমবিবিএস, এমএসসি, পিএইচডি,
সিনিয়র রিসার্চ অ্যাসোসিয়েট,
শেফিল্ড ইউনিভার্সিটি, যুক্তরাজ্য।

 

FavoriteLoadingপ্রিয় পোস্টের তালিকায় নিন।

About The Author

মন্তব্য করুন