বুধবার, মে ২৭, ২০২০

স্লিপ এপনিয়ার বা নাক ডাকার রোগ ইগনোর করার মতো ব্যাপার না [পার্ট – ১]

স্লিপ এপনিয়ার বা নাক ডাকার রোগ ইগনোর করার মতো ব্যাপার না [পার্ট – ১]

image_pdfimage_print

আমার এক আত্মীয় ছিলেন – এতো জোরে নাক ডাকতেন যে ঘরের দরজা জানালার কপাট পর্যন্ত কাঁপতো নাক ডাকার শব্দে | এই আত্মীয়ের কথা পাস্ট টেন্সে বললাম কারণ উনি এখন আর নাই – বয়েস চল্লিশের দশকেই ওনার হার্ট এটাক হয় আর বাইপাস সার্জারীর প্রয়োজন হয় | বাইপাস করেও নিস্তার মেলে নি| পঞ্চাশ এর ঘরেই আবার হার্ট এটাক এবং মৃত্যু|

কয়েকবছর আগে একজন মন্ত্রী ছিলেন – সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী সম্ভবত -. উনি যেখান সেখানে মিটিং এর মধ্যে ঘুমিয়ে পড়তেন | ব্যক্তিগত রেফারেন্স আমি জানি -উনিও সজোরে নাক ডাকতেন | এই মন্ত্রী সাহেব ও বেঁচে নেই আর – ওনার ও হৃদযন্ত্র বন্ধ হয়ে গেছে অনেক দিন হলো |

যেই আত্মীয়ের কথা বললাম – উনি কিন্তু একটা সেকেন্ড চান্স পেয়েছিলেন – ওনার বাইপাস হয়েছিল, কিন্তু আমি নিশ্চিত ওনার প্রচন্ড স্লিপ এপনিয়া (নাক ডাকার রোগ ) ছিল |উনি জানতেন না যে স্লিপ এপনিয়ার চিকিৎসা করতে হয় – উনি চিকিতসা করান নি | ওনার বাইপাস হয় কিন্তু স্লিপ এপনিয়ার কোন চিকিৎসা হয় না|

আমরা যখন ঘুমাই – আমাদের সব মাসল রিলাক্সড হয়ে যায় – রিলাক্সড হয় আমাদের গলার মাসল গুলাও | গভীর ঘুমে চলে গেলে গলার মাসল রিলাক্স করে কলাপ্স করে গলা দিয়ে লাঙ এ বাতাস চলাচলের পথ বন্ধ করে দেয | এর ফলশ্রুতিতে লাঙ এ ফ্রেশ বাতাস যেতে পারে না | তখন দুটো জিনিস হয় – অক্সিজেনের লেভেল খুব কমে যায় আর ব্রেইন ভাবে যে কেউ আপনার গলা টিপে ধরেছে এবং রিফ্লেক্সলি এবং সারভাইভাল ইনস্টিংক্টে এড্রেনালিন হরমোন রিলিজ করে | এই দুটোর এফেক্টে আপনার ঘুম ভেঙে যায় | ঘুম ভেঙে যায় সাবকনশাসলি | যদিও আপনার ঘুম ভেঙে যায় আপনি কিন্তু তা টের পান না |
এই ভাবে একজন স্লিপ এপনিয়ার রুগীর ঘুম ভাঙছে প্রতি ঘন্টায় ৫ থেকে ১০০ বারের মতো|
আপনার যদি একরাতে ৪০০ বার ঘুম ভেঙে যায় – আপনার রিস্টোরেশন বলতে কিছু হচ্ছে না | ঘুম থেকে উঠেই আপনার টায়ার্ড লাগে | মাথা ব্যাথা নিয়ে শুকনা ড্রাই মাউথ নিয়ে ঘুম ভাঙ্গে | সারা রাত বিছানায় অস্থির অস্থির করেন |

রুগীরা বলেন – ডক কিভাবে বোঝাবো তোমাকে – সারাদিন যে কি একজস্টেড আর টায়ার্ড লাগে | মনে হয় প্রতিমুহূর্ত নিজেকে ড্র্যাগ করে নিয়ে চলছি |
আর যেখানেই বসছি – ঘুমিয়ে পড়ছি | রাস্তার জ্যামে, মিটিং এর মধ্যে – আমি জানিও না – কখন ঘুমিয়ে পড়েছি | আর সারাদিন ঘুম ঘুম ভাব |
তবে সমস্যাটা যদি শুধু ঘুমের হতো বা ঘুমের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকতো, তাহলেও হতো – কিন্তু তা না | উপরে লিখেছি না – প্রতি ঘন্টায় পাঁচ থেকে ১০০ বার অক্সিজেন ড্রপ করছে – ব্রেইন এড্রেনালিন হরমোন রিলিজ করছে সারভাইভাল রিফ্লেক্সে | প্রতি রাতে যদি কয়েকশো বার এঘটনা ঘটে বছরের পর বছর – এই ব্যাপারটা হার্ট, ব্লাড প্রেশার, ব্রেইন আর পুরা শরীরের উপর প্রচন্ড চাপ ফেলে | ব্লাড প্রেশার হাই হয়ে যায়, হার্ট ফেইলিউর, হার্ট এটাক, স্ট্রোক, ডায়াবেটিস, পালমোনারী হাইপারটেনশন ইত্যাদির চান্স অনেক গুন বেড়ে যায় | হার্টের সমস্যা অনেকটা অবধারিত হয়ে যায় |

আপনার নাক ডাকার সমস্যা যদি থাকে – এবং উপরের বর্ণনা মতো যদি ঘুমিয়ে পড়ার প্রবণতা অথবা খুব টায়ার্ড লাগে সারাদিন – তাহলে আপনার স্লিপ এপনিয়া হবার সমূহ সম্ভাবনা | অনেক সময় নাক ডাকা ছাড়াও স্লিপ এপনিয়া হতে পারে | একটা বড় গ্রূপ পেশেন্ট তেমন নাক ডাকেন না | কিন্তু তাদের সিমটম গুলা আছে |

আমার অফিসের তিন থেকে দশ তলা পর্যন্ত হার্ট ইনস্টিটিউট | প্রিভেন্টিভ কার্ডিওলজি থেকে শুরু করে হার্ট ট্রান্সপ্লান্ট সব মিলিয়ে প্রায় ষাট জন কার্ডিওলজিস্ট এর অফিস /চেম্বার ওখানে | কয়েক বছর আগেও এরা স্লিপ মেডিসিন নিয়ে খুব একটা গা করতো না | ইদানিঙ ওদের নিজেদের কার্ডিওলজি কনফারেন্স গুলাতে স্লিপ এপনিয়ার এফেক্ট নিয়ে বেশ আলোকপাত হচ্ছে | ওরা এখন নিজেরাই টেনে হিঁচড়ে রুগীদের কে স্লিপ ক্লিনিকে নিয়ে আসছে নাক ডাকার চিকিৎসার জন্য | শুধু কার্ডিওলজি না – চিকিৎসা বিজ্ঞানের অন্য শাখা গুলাও স্লিপ এপনিয়ার সিরিয়াসনেস বুঝতে পারছে | আজকাল এনেস্থেসিওলজিস্ট রাও অজ্ঞান করার ক্লিয়ারেন্স দেয়ার আগে রুগী ফিরিয়ে দিচ্ছে আগে স্লিপ এপনিয়ার চিকিৎসা করিয়ে আনার জন্য |

নাক ডাকার রোগ ইগনোর করার মতো ব্যাপার না | এটার ডায়াগনোসিস এবং চিকিৎসা এখন বাংলাদেশে হয় | চিকিৎসা নিন |
কাল লিখবো নাক ডাকা রোগের ডায়াগনোসিস আর চিকিৎসার অপশন গুলো নিয়ে |

FavoriteLoadingপ্রিয় পোস্টের তালিকায় নিন।

About The Author

মন্তব্য করুন