বুধবার, জুন ১৯, ২০১৯

দেশে দেশে স্বাস্থ্য সেবায় সহিংসতা ।।৭।। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

দেশে দেশে স্বাস্থ্য সেবায় সহিংসতা ।।৭।। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

২০১৫ সালের জানুয়ারি মাসে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টন শহরের একটি বড় হাসপাতালের ঘটনা। এক ভদ্রলোক হাসপাতালের কার্ডিয়াক সার্জন মাইকেল ডেভিডসনের সঙ্গে দেখা করতে আসেন। সার্জন মাইকেল তার সঙ্গে যখন কথা বলছিলেন, তখন হাসপাতালের ভিতরেই ওই ভদ্রলোক তাকে সরাসরি গুলি করে হত্যা করেন। মাইকেল ডেভিডসন বোস্টনে হার্টের অপারেশনের জন্য পরিচিত নাম। তিনি ওই ভদ্রলোকের ৭৮ বছর বয়স্ক মায়ের হার্টের অপারেশন করেছিলেন। ভদ্র মহিলা অপারেশনের এক মাস পরে মারা যান। কিন্তু ভদ্রলোকের মনে সন্দেহ জাগে যে মাইকেলের কারণেই তার মায়ের মৃত্যু হয়েছে। সেজন্য তিনি মাইকেলকে হত্যা করেন এবং নিজেও ঘটনাস্থলে একই পিস্তল দিয়ে গুলি করে আত্মহত্যা করেন।

পত্র-পত্রিকায় এই ঘটনাটি বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে প্রকাশ করা হয়েছিল। কোন চিকিৎসককে এভাবে হত্যা করার ঘটনা বিরল। কিন্তু মিডিয়ায় তখনও বলা হয়নি যে আমেরিকার চিকিৎসকগণ প্রতিনিয়তই রোগী এবং তাদের আত্মীয়স্বজন কিংবা বন্ধুবান্ধবদের দ্বারা অযাচিত বৈরি আচরণ কিংবা সহিংসতার শিকার হয়ে থাকেন।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কর্মস্থলের ভায়োলেন্স রিপোর্ট করার প্রক্রিয়া একটু ভিন্ন ধরণের। সাধারণত কর্মস্থলের ভায়োলেন্স চার ধরণের হয়ে থাকেঃ

১) প্রথম ধরণের সহিংসতার অপরাধীদের সঙ্গে কর্মস্থলের কিংবা কর্মকর্তাদের প্রকৃত কোন সম্পর্ক থাকে না। অপরাধ করার জন্যই তারা ঘটনা ঘটায়। যেমনঃ ব্যাংক ডাকাতি করতে এসে ডাকাতদল ব্যাংকের প্রহরী কিংবা কর্মচারীকে হত্যা করে থাকে।

২) দ্বিতীয় ধরণের সহিংসতা যারা ঘটায় তারা প্রতিষ্ঠানের কাস্টমার কিংবা হাসপাতালের রোগী। সাধারণত এরা অধিকাংশ ক্ষেত্রেই মানসিক রোগী, মাতাল কিংবা ড্রাগ আসক্ত। কারণে-অকারণে এরাই কোন প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী কিংবা হাসপাতালের ডাক্তার-নার্সের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে কিংবা হাঙ্গামা করে।

৩) তৃতীয় ধরণের অপরাধীরা প্রতিষ্ঠান কিংবা হাসপাতাল-ক্লিনিকেরই কর্মচারী। কোন কারণে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়ে থাকলে তারা কিংবা তাদের প্ররোচনায় কেউ এসে সহিংস ঘটনা ঘটিয়ে থাকে।

৪) চতুর্থ ধরণের সহিংসতাকারীরা প্রতিষ্ঠান কিংবা হাসপাতালের কর্মচারীর নিকটজন। যেমনঃ কোন নার্সের প্রাক্তন স্বামী বিভিন্ন অজুহাতে এসে উক্ত নার্সের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করতে পারে।

এই চার ধরণের সহিংস ঘটনার মধ্যে স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানসমূহে দ্বিতীয় ধরণের সহিংস ঘটনাই বেশী ঘটে থাকে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কর্মস্থলে সহিংসতার যত রেকর্ড আছে তার চার ভাগের তিন ভাগই হাসপাতাল কিংবা ক্লিনিকে ঘটে থাকে। ২০১১ থেকে ২০১৩ সালের হিসেবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বছরে গড়ে ২৪,০০০ এমন ঘটনা ঘটেছে। এর ৭৫ শতাংশই স্বাস্থ্য সেবা প্রতিষ্ঠানে হয়েছে। তবে কর্মস্থলে নিরাপত্তার জন্য দায়িত্ব প্রাপ্ত সংস্থাসমূহ মনে করে আসলে অনেক ঘটনাই তাদের জানানো হয় না কিংবা নথিবদ্ধ করা হয় না।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে স্বাস্থ্যসেবায় সহিংস ঘটনার কারণ অনুসন্ধান এবং তা নিবারণ করার জন্য অনেক পর্যবেক্ষণের রিপোর্ট রয়েছে।। হাসপাতাল-ক্লিনিকের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা, চিকিৎসক-নার্সদের প্রশিক্ষণ দেওয়া থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরণের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। কিন্তু এধরণের ঘটনা কমার তেমন লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। পেশাগত ঝুঁকির অংশ হিসেবে এসব উৎপাত মেনে নিয়েই নিবেদিত প্রাণ চিকিৎসক এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য কর্মীরা প্রতিনিয়ত হাসিমুখে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন।

তথ্যসূত্রঃ Phillips JP. Workplace Violence against Health Care Workers in the United States. N Engl J Med. 2016 Apr 28;374(17):1661-9.

image_print
FavoriteLoadingপ্রিয় পোস্টের তালিকায় নিন।

About The Author

মন্তব্য করুন